Home / মিডিয়া নিউজ / তৃষ্ণা আছে, অপ্রাপ্তি নেই আমার শিল্পীজীবনে: রুনা লায়লা

তৃষ্ণা আছে, অপ্রাপ্তি নেই আমার শিল্পীজীবনে: রুনা লায়লা

রুনা লায়লা। বরেণ্য এ কণ্ঠশিল্পী ও সুরকারের জন্মদিন আজ। এ উপলক্ষে মাছরাঙা টিভির ‘রাঙা সকাল’

অনুষ্ঠানে অতিথি থাকবেন তিনি। এ আয়োজন ও শিল্পীজীবনের বিভিন্ন বিষয়ে কথা হয় তার সঙ্গে-

শুরুতেই সমকাল পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

এবার জানতে চাই, আজকের এই শুভ দিনটি কীভাবে কাটাবেন?

শুভেচ্ছার জন্য সমকাল পরিবারকে ধন্যবাদ। সবাই দোয়া করবেন, যেন আল্লাহ আমাকেসহ আমার পরিবারের সবাইকে সুস্থ রাখেন, ভালো রাখেন। আর যেটা জানতে চেয়েছেন- তার উত্তরে শুধু এটাই বলতে চাই, খুব সাধারণভাবেই আজকের দিনটি কাটবে। এবারের জন্মদিন আমার মেয়ে তানি এবং আমার দুই নাতির সঙ্গে লন্ডনে কাটানোর কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত লন্ডন যাওয়া হয়ে ওঠেনি। তাই ঢাকাতেই জন্মদিনের সময়টা কাটাতে হচ্ছে। পরিবারের সঙ্গেই কাটবে আমার জন্মদিন।

লন্ডনে কি শিগগিরই যাচ্ছেন?

হ্যাঁ, ১৯ নভেম্বর সকালের ফ্লাইটে লন্ডন যাচ্ছি। অনেক আগেই যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল, কিন্তু হলো না। এ জন্য মেয়ে ও নাতিদের কিছুটা মন খারাপ। করোনা আর একের পর এক লকডাউনের জন্য ঢাকায় অনেক দিন ঘরবন্দি কাটাতে হয়েছে। প্রিয়জনের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ হয়নি। তাই আমিও আর দেরি করতে পারছি না। আশা করছি, লন্ডন যাওয়া পেছানোয় নাতিদের যেটুকু মন খারাপ হয়েছে, তা দূর করতে পারব।

জন্মদিন উপলক্ষে মাছরাঙা টিভির ‘রাঙা সকাল’ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। এ আয়োজনে কী নিয়ে কথা বলেছেন?

শিল্পীজীবনের শুরু এবং নৃত্যশিল্পী হতে গিয়ে কীভাবে কণ্ঠশিল্পী হলাম- সে গল্পই এ আয়োজনে শুনিয়েছি। এর বাইরেও আলোচনায় নানা ঘটনা ও স্মৃতি তুলে ধরেছি।

পাঁচ দশকের শিল্পীজীবনে প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব-নিকাশ করেছেন কখনও?

কী পেলাম, কী পেলাম না, কী পাওয়া উচিত- এসব নিয়ে কখনও মাথা ঘামাইনি। পাঁচ দশকের ব্যাপ্তিতে অসংখ্য গান গেয়ে অগণিত মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি। এটাই বড় প্রাপ্তি। কিন্তু এটাও সত্যি, এত গান গাওয়ার পরও তৃষ্ণা মেটেনি। এ কথাও স্বীকার করি- শিল্পীজীবনে তৃষ্ণা আছে, অপ্রাপ্তি নেই। তাই যতদিন পারব গান গেয়ে যাব। গানে গানেই কুড়িয়ে নেব মানুষের ভালোবাসা।

একটি কথা প্রচলিত- ‘রুনা লায়লা মানে বাংলাদেশ’। এ বিষয়টা আপনাকে কতটুকু পুলকিত করে?

আমি বাংলাদেশের মেয়ে- এটাই আমার কাছে অনেক গর্বের বিষয়। আমার মাতৃভাষা বাংলা- এটাও আমার জন্য অনেক গর্বের বিষয়। যখন বিদেশের মাটিতে স্টেজ শোর জন্য পা রাখি; মঞ্চে ওঠার আগে যখন উপস্থাপক আমার নাম ঘোষণা করেন, তখন আমি বলে দিই, এভাবে বলেন- ‘রুনা লায়লা ফ্রম বাংলাদেশ’। বাংলাদেশকে বিশ্বে আমার কারণে, আমার গানের কারণে যতটা পরিচিত করে তোলা যায়, সেটা তো আমারই গর্বের বিষয়। আবার দেশের বাইরে যখন এ দেশের গান নিয়ে কথা বলেন, তখনও ভালো লাগায় মন ভরে যায়।

নতুন কিছু গানে সুর করার কথা বলেছিলেন। সেগুলোর কাজ শেষ হয়েছে?

নতুনদের জন্য বেশ কিছু গানের সুর করেছি। কিন্তু সে গানগুলোর জন্য কণ্ঠশিল্পী নির্বাচন ও সংগীতায়োজন করা হয়নি। বাকি কাজ শেষ হলেই গানগুলো রেকর্ড করব। নতুনদের জন্য এর আগেও দুটি গান করেছি। লুইপা আর হৈমন্তীর গাওয়া সে গান দুটি এর আগে ধ্রুব মিউজিক থেকে প্রকাশ পেয়েছে। এ দুই তরুণ শিল্পীর জন্য গানে সুর করার পর থেকেই সুরকার হিসেবে কাজ করার ইচ্ছা বেড়ে গেছে। তাই সময়-সুযোগ হলেই সুর করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

সিনেমার গানের জন্য সেরা সুরকারের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। কিন্তু ‘একটি সিনেমার গল্প’র পর আর কোনো ছবিতে সুরকার হিসেবে কাজ করেননি কেন?

‘একটি সিনেমার গল্প’ আলমগীরের ছবি। তাই এ ছবিতে সুরকার হিসেবে কাজ করেছি। কিন্তু এ ছবির পর আর সেভাবে সিনেমার গানে সুর করার সময় হয়ে ওঠেনি। তাই এ ছবির ‘গল্পকথার ওই কল্পলোকে জানি’ গানের জন্য রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেলেও সুরকার হিসেবে নিয়মিত কাজ করার কথা ভাবিনি। তবে ভবিষ্যতে হয়তো হঠাৎ আবার কোনো ছবির গানে সুর করে ফেলতে পারি। কিন্তু এ নিয়ে এখনই নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না।

Check Also

বাংলাদেশ আমাদেরই একটা অংশ: কৌশানি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অভিনেত্রী কৌশানি মুখার্জি। অভিনয় করেন কলকাতার সিনেমায়। অর্ধ যুগের ক্যারিয়ারে পেয়েছেন দারুণ পরিচিতি। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Recent Comments

No comments to show.